পোলানস্কি তাকে সিনেমায় অভিনয় করার সুযোগ দিবেন বলে প্রলুব্ধ করে তার বাসায় নিয়ে যান। তারপর সেখানকার বেডরুমে ধর্ষণ করেন ল্যাঙ্গারকে।

৪ অক্টোবর, ২০১৭ তারিখে সুইজারল্যান্ডের কর্তৃপক্ষ জানায়, অস্কারজয়ী ফিল্ম ডিরেক্টর রোমান পোলানস্কির নামে একজন সাবেক জার্মান অভিনেত্রী যৌন নির্যাতনের অভিযোগ দাখিল করেছেন।

তার অভিযোগ মতে, প্রায় ৪৫ বছর আগে সুইজারল্যান্ডের একটি পর্যটন শহরে এই ঘটনা ঘটে।

সেন্ট গ্যালেন শহরের একটি পুলিশ স্টেশনে রেনাটে ল্যাঙ্গার নামে ৬১ বছর বয়সী ওই জার্মান অভিনেত্রীর দায়ের করা রিপোর্টে বলা হয়, ১৯৭২ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে পর্যটন শহর কুস্তাদে পোলানস্কি নিজের বাসায় ওই মহিলাকে ধর্ষণ করেছিলেন।

পোলানস্কির আইনজীবী জানিয়েছেন, তার সাথে এখনো এই ব্যাপারে কোনো আলোচনা হয় নাই।

দ্য নিউ ইয়র্ক টাইমস’কে দেওয়া একটা সাক্ষাৎকারে রেনাটে ল্যাঙ্গার তার অতীত জীবনের এই ঘটনার কথা জানান।

রেনাটে ল্যাঙ্গার

৮৪ বছর বয়সী পোলানস্কি ১৯৭৮ সাল থেকে পলাতক আসামী হিসাবে বসবাস করছেন। একজন অপ্রাপ্তবয়স্ক মেয়ের সাথে বেআইনি যৌন মিলনের অভিযোগে দোষী সাব্যস্ত হলে ক্যালিফোর্নিয়া থেকে ফ্রান্সে পালিয়ে আসেন তিনি। তখন থেকে পালিয়েই বেড়াচ্ছেন।

নিজ দেশ পোল্যান্ড ছাড়া কেবল ফ্রান্স আর সুইজারল্যান্ডেই কোনো প্রকার আইনি বাধা ছাড়া চলাফেরা করতে পারেন তিনি।

নিউ ইয়র্ক টাইমস’কে ল্যাঙ্গার জানান, তার বাবা-মার কথা চিন্তা করেই তিনি এতদিন এ ঘটনার কথা প্রকাশ করতে পারেন নাই। কয়েক মাস আগে তার বাবা মারা যান; আর দুই বছর আগে তার মায়ের মৃত্যু হয়। “আমি ব্যাপারটা নিয়ে খুবই বিব্রত, একা ও বিষণ্ন বোধ করতাম। আমার মা জানতে পারলে নিশ্চিত হার্ট অ্যাটাক করতেন,” সেই সাক্ষাৎকারে নিজের দ্বিধান্বিত পরিস্থিতির ব্যাপারে বলেন তিনি।

একজন পুলিশ কর্মকর্তা জানিয়েছেন, ওই নারী সেন্ট গ্যালেনে কেন এই রিপোর্ট করেছেন তা স্পষ্ট না। কারণ বিচার সংক্রান্ত কার্যাবলীর জন্য কুস্তাদ শহর বার্ন এলাকার আওতাধীন। কুস্তাদ শহরে পোলানস্কির মালিকানাধীন একটি কটেজ রয়েছে। ২০০৯ থেকে ২০১০ পর্যন্ত আগের ধর্ষণ মামলার কিছু আইনি জটিলতার কারণে তাকে সেখানে থাকতে হয়েছিল।

১৩ তম জুরিখ চলচ্চিত্র উৎসবে রোমান পোলানস্কি; ২ অক্টোবর, ২০১৭

সেন্ট গ্যালেনের ফৌজদারী কার্যালয় থেকে জানানো হয়, রিপোর্টটি যথাযথ কর্তৃপক্ষের কাছে হস্তান্তর করা হলে তারাই জানাবে মামলাটি আদালত পর্যন্ত গড়াবে কিনা।

নিউ ইয়র্ক টাইমসের তথ্য অনুযায়ী, ১৯৭২ সালে মিউনিখে একজন মডেল হিসাবে কাজ করছিলেন ল্যাঙ্গার। পোলানস্কি তাকে সিনেমায় অভিনয় করার সুযোগ দিবেন বলে প্রলুব্ধ করে তার বাসায় নিয়ে যান। তারপর সেখানকার বেডরুমে ধর্ষণ করেন ল্যাঙ্গারকে। এই ঘটনার এক মাস পর পোলানস্কি তার কাছে মাফ চেয়েছিলেন। ক্ষতিপূরণ হিসাবে ল্যাঙ্গারকে তার পরবর্তী সিনেমা ‘হোয়াট?’ এ ছোট একটা চরিত্রে অভিনয়ের সুযোগ দেন তিনি।

ল্যাঙ্গার বলেন, রোমে শুটিং চলাকালীন তার কাছ থেকে শারীরিকভাবে কোনোপ্রকার সুযোগ নেওয়ার চেষ্টা করেন নাই পোলানস্কি। কিন্তু শুটিংয়ের পর রোমে ল্যাঙ্গারের বাসায় গিয়ে পোলানস্কি আবারো তাকে ধর্ষণ করেন।

আরো পড়ুন: পলাতক রোমান পোলানস্কি’র ধর্ষণ মামলা প্রত্যাহারে অস্বীকৃতি বিচারকের

নিজের নতুন সিনেমা ‘বেইজড অন আ ট্রু স্টোরি’র প্রদর্শনী উপলক্ষে গত ২ অক্টোবর, ২০১৭ তারিখে সুইজারল্যান্ডের জুরিখ চলচ্চিত্র উৎসবে এসেছিলেন পোলানস্কি। সঙ্গে ছিলেন স্ত্রী ইমানুয়েল সেইনিয়ের। ছবিটিতে ইমানুয়েলের সাথে আরো অভিনয় করেছেন ফ্রেঞ্চ অভিনেত্রী ইভা গ্রেন।

এর আগে ২০১৭ সালের আগস্ট মাসে এক সংবাদ সম্মেলনে রবিন এম নামের একজন নারী পোলানস্কির নামে যৌন নির্যাতনের অভিযোগ করেন। ১৯৭৩ সালে ওই মহিলার বয়স যখন ১৬, তখন পোলানস্কি তাকে ধর্ষণের চেষ্টা করেছিলেন বলে জানান তিনি। ২০১০ সালে ব্রিটিশ অভিনেত্রী শার্লট লুইসও পোলানস্কির নামে একই রকম অভিযোগ করেন।

সূত্র. দ্য নিউ ইয়র্ক টাইমসটাইম

কমেন্ট করুন

মন্তব্য