page contents
লাইফস্টাইল, সংস্কৃতি ও বিশ্ব

দেখুন: যে কারণে সী লায়ন মেয়েটিকে সমুদ্রে টেনে নিল (ভিডিও)

সম্প্রতি ভাইরাল হওয়া একটা ভিডিওতে দেখা গেছে, একটা সী লায়ন একটা ছোট মেয়েকে টেনে সমুদ্রে নিয়ে গেছে। মেয়েটি আরো অনেকের সাথে সমুদ্রের তীর থেকে সী-লায়নকে খাবার দিচ্ছিল। ঘটনাটি ঘটেছে কানাডায়।

ভিডিওতে দেখা গেছে, কানাডার ব্রিটিশ কলম্বিয়ার একটি ডক থেকে কিছু লোক সী লায়নের জন্য পানিতে খাবার ছুঁড়ে দিচ্ছিল। কিছু লোক খাবার নিয়ে পানির একেবারে কাছাকাছি চলে গেলে বিশালাকার প্রাণীটি আরো এগিয়ে আসে।

এক পর্যায়ে প্রাণীটি মাথা তুলে আরো খাবার খুঁজতে থাকে। মেয়েটি একেবারে কিনারে বসেছিল। সী লায়নটি তখন মেয়েটিকে টান দেয়। মেয়েটিকে টেনে নিয়ে প্রাণীটি তখন পানিতে অদৃশ্য হয়ে যায়। মেয়েটির দাদা সাথে সাথে পানিতে ঝাঁপ দেয়।

মেয়েটিকে টেনে নিয়ে প্রাণীটি তখন পানিতে অদৃশ্য হয়ে যায়।

ক্যালিফোর্নিয়া জাতের সী লায়ন সাধারণত ৭ ফুট পর্যন্ত লম্বা হয় এবং ৮৬০ পাউন্ড পর্যন্ত এদের ওজন হয়। এই জাতের সী-লায়নরা সাধারণত খাদ্য হিসাবে ছোট খাবার, মাছ, স্কুইড ও শেল-ফিশ পছন্দ করে। স্টেলারস জাতের সী লায়নরা আকৃতিতে আরো বড় হয়। এই দুই জাতের সী-লায়নই ওই অঞ্চলে আছে।

তবে মেয়েটিকে খাওয়ার উদ্দেশ্য নিয়ে সী লায়ন তীরের দিকে এগিয়ে আসে নি, আরো খাবারের খোঁজে এটি এগিয়ে এসেছিল।

সী-লায়ন সাধারণত কৌতূহলী হয়ে থাকে। যে জায়গাটিতে সী-লায়নটি মেয়েটিকে টেনে নিয়েছে, একই জায়গায় সী লায়নদের বংশ-বিস্তার অঞ্চলে যাওয়ার কারণে একজন ডুবুরীকে ঘিরে ধরে পর্যবেক্ষণ করে দেখছিল তারা। তার মাস্কে কামড় দিচ্ছিল ও তার দু পায়ের মাঝখান দিয়ে যাওয়া আসা করছিল, তবে তাকে আক্রমণ করে নি।

সী-লায়নরা সহিংস-ও হয়ে থাকে, তবে মানুষের ক্ষেত্রে তারা আক্রমণের চেয়ে সাধারণত কৌতূহল বেশি দেখায়।

মেয়েটির কোনো ক্ষতি করার উদ্দেশ্য সী লায়নটির না থাকলেও মেয়েটি মারাত্মকভাবে আহত হতে পারত। বন্য প্রাণীদের খাওয়ানোর অভ্যাস ঝুঁকিপূর্ণ। এবং এই অভ্যাস প্রাণীদের ওপর ক্ষতিকর প্রভাব ফেলে।
ফ্লোরিডা প্রোগ্রাম ফর শার্ক রিসার্চের ডিরেক্টর জর্জ বার্জেস বলেছেন, প্রাণীদেরকে খাবার দেওয়া তাদের আচরণে দীর্ঘ মেয়াদী প্রভাব ফেলে। তাদেরকে শিক্ষা দেয় যে মানুষের মত তাদের জন্যও খাবার প্রকৃতিতে মুক্ত অবস্থায় থাকে।


Sea lion drags girl into Steveston waters

Tagged with:

About Author

সাম্প্রতিক ডেস্ক