page contents
লাইফস্টাইল, সংস্কৃতি ও বিশ্ব

পশ্চিমা বিশ্বে জিহাদি হামলার আহ্বান লাদেনপুত্র হামজার

নতুন এক অডিও বার্তায় আল-কায়েদা নেতা ওসামা বিন লাদেনের পুত্র হামজা বিন লাদেন আমেরিকা এবং তার মিত্র দেশগুলির বিভিন্ন শহরে হামলার আহ্বান জানিয়েছেন।

লাদেনের ২৪ পুত্রের মধ্যে বয়োজ্যেষ্ঠ হামজা এখন বিশের কোঠায় এবং আল-কায়েদার পরবর্তী সম্ভাব্য নেতা মনে করা হয় তাকে। পশ্চিমা গণমাধ্যমে তাকে ‘ক্রাউন প্রিন্স অব টেরর’ হিসেবে আখ্যায়িত করা হচ্ছে। এর একটি কারণ, মনে করা হয়, তাকে আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসবাদী এই সংগঠনের পরবর্তী প্রধান হিসেবে গোপনে গড়ে তোলা হচ্ছে, যদিও লাদেন নিজে তার সন্তানদের জিহাদি ক্যারিয়ার বেছে নেওয়ার পক্ষপাতি ছিলেন না।

আল-কায়েদার নতুন বার্তাটি প্রকাশ করা হয়েছে টুইটারে। সেখানে হামজা বিন লাদেন আমেরিকা আর তার মিত্রদের ওপর জিহাদি হামলার আহ্বান জানিয়েছেন।

তিনি কাবুল, গাজা আর বাগদাদ থেকে এই জিহাদ শুরু করতে বলেছেন। সেই সঙ্গে সুনির্দিষ্ট করে ওয়াশিংটন, লন্ডন, প্যারিস, ও তেল আবিবের নাম করে বলেছেন, এসব শহরে নিঃসঙ্গভাবে হলেও যাতে হামলা চালানো হয়। তিনি বলেছেন, এটাই জিহাদিদের কর্তব্য।

এই বার্তায় নতুন সন্ত্রাসবাদী সংগঠন আইসিস-এর কোনো উল্লেখ নেই।

সন্ত্রাসবাদীদের তৎপরতা বিষয়ে গবেষণা পরিচালনাকারী গ্রুপ ‘সাইট’-এর পরিচালক রিটা কাটৎস আরেক টুইট বার্তায় বলেন, “ওসামা বিন লাদেনের পুত্র হামজা বিন লাদেন এক অডিও বার্তায় বিশ্বজুড়ে জিহাদ অব্যাহত রাখতে কৌশল তুলে ধরেছেন।” বিশ্বজুড়ে মার্কিন ও ইহুদি স্বার্থে আঘাত হানতে বলেছেন তিনি।

রিটৎস জানান, আফগানিস্তানে আল-কায়েদা গঠনের পুরো সময়টা হামজা তার বাবার পাশে পাশে থেকেছেন, জিহাদি জীবনই তিনি যাপন করেছেন। হামজাকে সক্রিয় করার মধ্য দিয়ে আল-কায়েদা তাদের হারানো জনপ্রিয়তা ফিরে পেতে আগ্রহী। আল-কায়েদা আর বিন লাদেনকে সমার্থক হিসেবে তুলে ধরাই তাদের প্রচারাভিযানের নয়া কৌশল। নতুন নেতা হিসেবে হামজার প্রভাববলয় আর ক্যারিশমাকে কাজে লাগাতে আগ্রহী সংগঠনটি।

মনে করা হয়, বছর দশেক আগে আফগানিস্তান ও পাকিস্তানে কয়েকটি জঙ্গি হামলার সঙ্গে হামজা যুক্ত ছিলেন।

গবেষকরা মনে করছেন, অডিও বার্তাটি মাত্রই প্রচার করা হলেও এটি সম্ভবত জুন মাসের আগে রেকর্ড করা হয়েছে।

২০১১ সালে পাকিস্তানের অ্যাবোটাবাদে মার্কিন মেরিন সেনাদের হামলায় ওসামা বিন লাদেনের মৃত্যুর পর থেকে আইমান আল জাওয়াহিরি এ সংগঠনটির নেতৃত্ব দিয়ে আসছেন।

About Author

সাম্প্রতিক ডেস্ক