page contents
লাইফস্টাইল, সংস্কৃতি ও বিশ্ব

বাদুড়ের দেহে ‘সার্স’ ধরনের করোনাভাইরাস!—যে কোনো সময় শুরু হতে পারে নতুন মহামারী

সার্স করোনাভাইরাস (SARS-CoV) একটি বিপজ্জনক ভাইরাস। এর মহামারী শুরু হয়েছিল ২০০৩ সালের ১৬ এপ্রিল। তখন পশুশরীর থেকে মানুষের শরীরে সংক্রমণের মাধ্যমে বিশ্বের নানা জায়গায় সার্স (SARS—Severe Acute Respiratory Syndrome) দেখা দেয়। ৮২৭৩ জন মানুষ সার্স ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছিল। মারা গিয়েছিল ৭৭৫ জন।

এবার বাদুড়ের দেহে সার্স ভাইরাসের মতই বিপজ্জনক নতুন ভাইরাসের সন্ধান পেয়েছেন বিজ্ঞানীরা। এই ভাইরাস মিউটেশন ছাড়াই অর্থাৎ নিজের জিনের কোনো বদল ঘটানো ছাড়াই মানবশরীরে টিকে থাকতে পারে।

ভাইরাসটি ছোঁয়াচে কিনা বা পশু ও মানুষ থেকে মানুষে সংক্রমিত হবে কিনা সে ব্যাপারে অবশ্য গবেষকরা এখনো নিশ্চিত হতে পারেন নাই।

ralf-baric-1

ড. রালফ ব্যারিক, ইউনিভার্সিটি অব নর্থ ক্যারোলাইনা

ইউনিভার্সিটি অব নর্থ ক্যারোলাইনার সিনিয়র গবেষক ড. রালফ ব্যারিক ইউনিভার্সিটির পক্ষ থেকে জানান, গবেষণা থেকে মনে হচ্ছে বাদুড়ের মধ্যে প্রায় ৫০০ করোনাভাইরাস আছে, এবং এদের মধ্যে অনেকগুলিরই মানুষের দেহে সংক্রমিত হওয়ার ক্ষমতা রয়েছে। ফলে, আদৌ এই করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঘটবে কিনা এ ধরনের প্রশ্নের সুযোগ নাই। বরং সব সময়ই এসব ভাইরাসের ব্যাপারে আমাদের প্রস্তুত থাকতে হবে।

ব্যারিক ও সহকর্মীরা দেখছেন সার্সের মত ‌এই ভাইরাস অশ্বক্ষুরাকৃতির চাইনিজ বাদুড়ের দেহে কী আচরণ করে। তারা দেখেছেন এই ভাইরাস বাদুড় এবং মানুষের দেহে একই ভাবে প্রবেশ করে। গবেষকরা জানিয়েছেন ভাইরাসটি প্রথমে মানুষের ফুসফুসের প্রাইমারি কোষগুলিতে সার্স ভাইরাসের মতই নিজেদের বিস্তার ঘটায়।

coronavirus1

সার্স করোনাভাইরাস

বলা দরকার, নতুন আবিষ্কৃত ভাইরাসের সংক্রমণ দেখা দিলে চিকিৎসার কোনো ব্যবস্থা নেই।

 

কিছুদিন আগে ইউএস সরকারের নতুন সিদ্ধান্তের কারণে বিপদজনক করোনাভাইরাসের চিকিৎসা বা ভ্যাকসিনের গবেষণা ধীরগতির হয়ে গেছে এবং তা নিয়ে বেশ বিতর্ক তৈরি হয়েছে। সেই বিবেচনায় এই গবেষণার ফলাফল বেশ গুরুত্বপূর্ণ বলে জানিয়েছেন গবেষকরা।

ব্যারিক বলেছেন, ভবিষ্যতের মহামারী সংক্রমণ রোধ করতে প্রাণিদেহ পরীক্ষা করে দেখা এবং চিকিৎসা পদ্ধতি বের করার জন্য প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র সীমিত করার চেয়ে সেগুলি প্রদান করা বেশি কার্যকরী।

About Author

সাম্প্রতিক ডেস্ক