ভালো ঘুমের সিম্পল ৮ উপায়

শেয়ার করুন!

বেশি ঘুম জরুরি নয়, জরুরি ভালো ঘুম।

ভালো ঘুমই আপনাকে দিতে পারে কর্মব্যস্ত দিনের দরকারি প্রাণশক্তি। আপনার প্যাশন হয়ত আপনাকে কাজে আগ্রহী করে রাখবে, কিন্তু সেই আগ্রহ আর উদ্যমকে প্রতিনিয়ত জাগিয়ে রাখতে ভালো ঘুমের বিকল্প নেই।

প্রতিদিন সমান পরিমাণ ঘুমাতে হবে এমন কোনো কথা নেই। একটু হেরফের হতেই পারে। কিন্তু কত ঘণ্টা ঘুমাচ্ছেন তারচেয়েও বেশি গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে কত ভালো ঘুম হচ্ছে।

নিচে ভালো ঘুমের সিম্পল ৮ উপায় বলা হলো।  একটু চেষ্টা করলেই এই উপায়গুলি কাজে লাগিয়ে আপনিও ভালো ঘুম দিতে পারবেন অনায়াসেই।

১.
বেডরুমে টিভি কিংবা অন্য কোনো বিনোদনের যন্ত্র একদমই রাখবেন না। বেডরুমে এমন যন্ত্র থাকলে একটা অদৃশ্য নয়েজ থাকে সবসময়। এমনকি সেগুলি বন্ধ করে রাখলেও তা থাকে। যেমন, টিভি বন্ধ রাখলে মজার কোনো কিছু মিস করছেন ভেবে আপনার ভেতর একটা অশান্তি আর অস্বস্তি কাজ করে। ফলে আপনি সেটা আবার চালু করতে চান। বন্ধ থাকলেও একটা অদৃশ্য নয়েজ থাকে মানে এই অশান্তি আর অস্বস্তিটাই। তাই সাতপাঁচ না ভেবে বেডরুম থেকে আজই সরিয়ে ফেলুন এইসব যন্ত্র। আপনার বেডরুম হবে অযান্ত্রিক।

আরো পড়ুন: স্রেফ এক রাতের কম ঘুমই যে ৭ ক্ষতি নিয়ে আসে!

২.
দুই হাঁটুর ফাঁকে বালিশ রেখে ঘুমানোর অভ্যাস শুরু করুন। কোমরের ব্যথা বা ব্যাক পেইন কমায় এই তরিকা। অস্বস্তি দূর করে এই মেথড আপনাকে ভালো ঘুমে সাহায্য করবে।

৩.
বেডরুমের দেয়ালের রঙ কী থাকবে তা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কারণ রঙের সাথে মনের নিবিড় সম্পর্ক। যেমন, লাল রঙ আমাদের আগ্রাসন আর উত্তেজনা বাড়িয়ে তোলে। ফলে শোয়ার ঘরে লাল বা এ ধরনের কোনো রঙ ব্যবহার করবেন না। নীল বা সবুজ আমাদের মনে প্রশান্তি আর স্বস্তি এনে দেয়। আপনার বেডরুমের দেয়ালে এবং অন্দরসজ্জায় এমন কোনো স্বস্তিদায়ক রঙ ব্যবহার করুন।

৪.
প্রকৃতির কোনো শব্দ বা সুর শুনে শুনে ঘুমানোর অভ্যাস করুন। অ্যালার্ম ঘড়িতে, ঘুমিয়ে পড়ার সময় এলার্ম টোন হিসেবে ঝিঁঝিঁ পোকার ডাক আর জেগে ওঠার সময় সমুদ্রের ঢেউয়ের গর্জনের শব্দ রাখতে পারেন। প্রকৃতির এইসব শব্দ ও সুর ভালো ঘুমের জন্য ভীষণ সহায়ক।

৫.
বেডরুম গুছিয়ে রাখুন। সবকিছু যার যার নির্দিষ্ট স্থানে রাখুন। গোছানো পরিবেশে ভালো ঘুম হয়।

৬.
প্রতিদিন সকাল বেলা ঘুম থেকে জেগেই বিছানা গোছানোর অভ্যাস করুন। রাতে, পরিপাটি করে গোছানো বিছানা দেখলেই শুয়ে পড়তে ইচ্ছে করবে। তাছাড়া কোনো এক অজানা কারণে পরিপাটি করে গোছানো বিছানার চাদরগুলিও নরম তুলতুলে আর আরামের মনে হয়।

আরো পড়ুন: এক মিনিটে ঘুমিয়ে পড়বেন যেভাবে

৭.
যে বিষয় নিয়ে আপনি চিন্তিত, ঘুমাতে যাওয়ার আগে তা কাগজে বা কোথাও লিখে ফেলুন। তাতে করে আপনার মাথা হালকা হয়ে যাবে এবং নির্ভার হয়ে ঘুমাতে পারবেন।

৮.
ঘুমাতে গিয়ে ইতিবাচক চিন্তা করুন। কৃতজ্ঞতাবোধের অভ্যাস খুবই গুরুত্বপূর্ণ। বিছানায় শুয়ে শুয়ে ঘুমিয়ে পড়ার আগ পর্যন্ত সময়টুকুতে সারাদিনে ঘটে যাওয়া সমস্ত ইতিবাচক জিনিসগুলি ভাবুন আর কৃতজ্ঞ থাকুন সবকিছুর জন্য।

কমেন্ট করুন

মন্তব্য

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here