page contents
লাইফস্টাইল, সংস্কৃতি ও বিশ্ব

ভ্রুতে ট্যাটু করা ও লেজার পদ্ধতিতে সেই ট্যাটু মুছে ফেলার পর

“আমার এখন বলতে গেলে কোনো ভ্রু-ই নাই”–ভ্রুতে ট্যাটু করা ও লেজার পদ্ধতিতে ট্যাটু মুছে ফেলার ভয়ানক ফল সম্পর্কে মন্তব্য করেন এক তরুণী।

লেজার পদ্ধতিতে ট্যাটু মুছে ফেলার দারুণ ব্যবসা চলছে অস্ট্রেলিয়ায়।

কিন্তু অত্যাধুনিক এই প্রযুক্তিতে খরচ হয় লাখ লাখ ডলার। আর গোটা প্রক্রিয়ায় তেমন নজরদারিও নেই।

ট্যাটু তুলে ফেলার পর কিম লি

তাই অনভিজ্ঞ ও প্রশিক্ষণহীন অনেক বিউটি থেরাপিস্ট কম দামে লেজার মেশিন কিনে কাস্টমারদের চিকিৎসা করছেন।

কিম লি নামের সিডনির একজন মেয়ে তার ভ্রু-তে করানো ট্যাটু পছন্দ না হওয়ায় তা তুলে ফেলতে যান। কিন্তু লেজারের তাপে তার ভ্রু-তে ফোসকা পড়ে যায়। এভাবে থেরাপিস্টের কাছে প্রায় ৮ বার বৈঠকের পর তিনি ট্যাটু মুছে ফেলতে সক্ষম হন।

কিন্তু এখন তার চোখের ওপর ভ্রু বলতে আর কিছুই অবশিষ্ট নাই। প্রতি দিন সকালে ১০ মিনিট ধরে নিজের ভ্রু এঁকে নিতে হয় তাকে।

সাধারণত দুই পদ্ধতিতে ট্যাটুর কালি মোছা যায়–তাপ প্রয়োগে বা শব্দতরঙ্গ ব্যবহার করে। ‘কিউ-সুইচ’ মেশিন তাপশক্তির ব্যবহার করায় তা অনেক সময় চামড়া পুড়ে ফেলে। এছাড়া ‘পিকোওয়ে’ মেশিনে শব্দতরঙ্গ ব্যবহার করে কালি বিক্ষিপ্ত করে দেওয়া হয়। ফলে দেহের প্রতিরোধ ক্ষমতা খুব সহজেই সেসব উচ্ছেদ করে ফেলতে পারে।

এই মেশিনের বাজারদর প্রায় তিন লাখ ডলার হলেও দুই পদ্ধতির মাঝে এটিই বেশি কার্যকরী ও স্বাস্থ্য অনুকূল।

সূত্র. নিউজ ডটকম, অস্ট্রেলিয়া

About Author

সাম্প্রতিক ডেস্ক