page contents
লাইফস্টাইল, সংস্কৃতি ও বিশ্ব

মাফিয়া লিডার ভিনসেন্ট আসারো ‘গুডফেলাস’ ক্রাইমের অভিযোগ থেকে মুক্তি পেলেন

১৯৭৮ সালে এয়ারপোর্টে চাঞ্চল্যকর ডাকাতির পরিকল্পনার অভিযোগ থেকে নির্দোষ প্রমাণিত হলেন কুখ্যাত অপরাধী ভিনসেন্ট আসারো। বিখ্যাত মাফিয়া ছবি গুডফেলাস (১৯৯০) এর গল্প এয়ারপোর্টের সেই ঘটনা থেকে অনুপ্রাণিত।

১৩ নভেম্বর, ২০১৫ তারিখে রায় ঘোষণার পরে ৮০ বছর বয়সী ভিনসেন্ট আসারো ব্রুকলিনের কোর্টহাউজ থেকে হেঁটে বাইরে বের হয়ে শূন্যে নিজের দুই হাত ছুঁড়ে দিয়ে চিৎকার করে বলেন ‘ফ্রি’।

Goodfellas-trial

‘গুডফেলাস’ ছবিতে জিমি কনওয়ে, হেনরি হিল, টমি দেভিটো, পল সিসারো চরিত্রে যথাক্রমে রবার্ট ডি নিরো, রে লিওটা, জো পেসি ও পল সোরভিনো।

তিন সপ্তাহব্যাপী বিচারের পর ভিনসেন্ট আসারো হত্যা, চাঁদাবাজি এবং অন্যান্য অপরাধের অভিযোগ থেকে নির্দোষ প্রমাণিত হয়েছেন।

গত বছর ভিনসেন্ট আসারোর গ্রেপ্তার হওয়ার পর অনেকেই আশা করেছিলেন যে যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসের সবচেয়ে কুখ্যাত ও সমাধান না হওয়া একটি অপরাধের সমাধান পাওয়া যাবে।

১৯৭৮ সালে নিউ ইয়র্কের জন এফ কেনেডি এয়ারপোর্টের লুফৎহানসা এয়ারলাইনসের কার্গো বিল্ডিং থেকে কয়েকজন মুখোশধারী নগদ ৫ মিলিয়ন ডলার ও ১ মিলিয়ন ডলার মূল্যের মূল্যবান রত্ন ডাকাতি করে। সে সময় পর্যন্ত সেটিই ছিল যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে সংঘটিত সবচেয়ে বড় ডাকাতির ঘটনা।

সরকার পক্ষের প্রসিকিউটররা দাবি করেছিলেন, ডাকাতির সময়ে মি. আসারো এয়ারপোর্ট থেকে ১ মাইল দূরে জিমি বার্ক নামের আরেকজন গ্যাংস্টারের সাথে অপেক্ষা করছিলেন। মার্টিন স্করসিসের গুডফেলাস ছবিতে রবার্ট ডি নিরোর চরিত্রটি জিমি বার্ক থেকে অনুপ্রাণিত।

এই অপরাধের ঘটনায় মাত্র একজন ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করা হয়। আইনজীবীরা কয়েক বছর ধরে আসামীর বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন এবং সিনিয়র মাফিয়া ব্যক্তিত্বদের কাছে প্রমাণ আহবান করেন।

যুক্তরাষ্ট্র অ্যাটর্নির অফিস রায়ের পর মন্তব্য জানাতে অস্বীকার করে। উৎফুল্ল মি. আসারোও রায় ঘোষণার পর কোনো মন্তব্য করেন নি।

ভিনসেন্ট আসারো কোর্টহাউজের বাইরে সাংবাদিকদের বলেন, আমি খুব শকড ছিলাম, আমি আসলেই খুব শকড ছিলাম। অতীতে এই কোর্টহাউজেই জন গটির মত বিখ্যাত মাফিয়া অপরাধীর বিচার হয়েছিল।

শেষ বক্তৃতায় অ্যাসিসট্যান্ট অ্যাটর্নি অ্যালিসিন কুলি আদালতে বলেন, আসামীর বাবা এবং দাদা গোপন অপরাধের সাথে জড়িত বনানো পরিবারের সদস্য ছিল, আসামী সেই জীবনের মধ্যেই জন্মেছিল এবং সেই জীবনকেই সম্পূর্ণ আলিঙ্গন করে নিয়েছিল।

asaro-11

ভিনসেন্ট ‘ভিনি’ আসারো, তার দুই উকিলের সঙ্গে

সরকার পক্ষের অভিযোগ সম্পূর্ণভাবেই মি. আসারোর কাজিন গ্যাসপেয়ার ভ্যালেন্তির ওপর নির্ভর করছিল, কিন্তু বিবাদী পক্ষের উকিল বলেন গ্যাসপেয়ার ভ্যালেন্তির মত সাক্ষী আসলে ‘সম্পূর্ণরূপে মিথ্যাবাদী’।

অক্টোবর মাসে আদালতে মি. ভ্যালেন্তি সাক্ষ্য দেন, মি. আসারো এবং মি. বার্ক একজন সন্দেহভাজন বার্তা প্রদানকারীকে কুকুরের চেইন দিয়ে হত্যা করে তাকে কবর দেওয়ার নির্দেশ দেন।

কোর্ট থেকে বের হয়ে বাইরে তার জন্য অপেক্ষায় থাকা গাড়িতে চড়ার সময় মি. আসারো তার আইনজীবীর প্রতি কৌতুক করে বলেন, স্যাম, ট্রাঙ্কে লুকানো লাশটা তাদের দেখতে দিও না।

একজন মাদক ব্যবসায়ীকে হত্যার শাস্তি হিসাবে বিশ বছর কারাদণ্ড পেয়েছিলেন জিমি বার্ক। জেলে থাকা অবস্থায়ই ১৯৯৬ সালে মারা যান তিনি। ১৯৭৮ সালের লুফৎহানসা ডাকাতি এবং পরবর্তীতে সেই ডাকাতিতে অংশ নেওয়া অনেককে হত্যার সন্দেহভাজন ছিলেন জিমি বার্ক, কিন্তু সেই বিচারকার্য আর শেষ হয় নি।

About Author

সাম্প্রতিক ডেস্ক