page contents
লাইফস্টাইল, সংস্কৃতি ও বিশ্ব

যেসব তরুণ বয়স বাড়ার সাথে গাঁজার মাত্রা বাড়ান শিক্ষায় তাদের ব্যর্থ হওয়ার আশঙ্কা বেশি

১৫ থেকে ১৯ বছরের মাঝে যারা ধীরে ধীরে গাঁজা খাওয়ার পরিমাণ বাড়িয়ে দেন, তারা ক্রমান্বয়ে হতাশায় ভোগা শুরু করতে থাকেন।

এক সময় আনন্দ ভোগের ক্ষমতা কমে আসে এবং শিক্ষাজীবনে সাফল্য লাভের সম্ভাবনাও কমে যায় তাদের।

ডেইলি মেইল থেকে পাওয়া তথ্য মতে, যুক্তরাষ্ট্রের পিটসবার্গ ইউনিভার্সিটির ড. এরিকা ফোর্বস বলেন, “যারা নিয়মমাফিক অধিক পরিমাণ মারিজুয়ানা সেবন করেন, তাদের মস্তিষ্কের কার্যপ্রণালীতে আমরা বড় ধরনের পরিবর্তন খুঁজে পাবার প্রত্যাশা করেছিলাম। কিন্তু দেখা গেল, যারা বয়সের সাথে সাথে ক্রমান্বয়ে মারিজুয়ানা সেবনের পরিমাণ বাড়াতে থাকেন, বরং তাদেরই মস্তিষ্কের কার্যকারিতায় পরিবর্তন আসে বেশি।”

তিনি আরো বলেন, “যদিও অনেকে মনে করেন যে মারিজুয়ানা সেবন তেমন ক্ষতিকারক না, কিন্তু  একজন ব্যক্তির মেজাজ, শিক্ষাজীবন এবং কর্মক্ষেত্রে এর তীব্র প্রভাব রয়েছে।”

নিউ ইয়র্ক ইউনিভার্সিটির মাদকদ্রব্য গবেষক ইয়ান হ্যামিল্টন ডেইলি মেইল অনলাইনকে বলেন, “এই গবেষণা থেকে জানা যায়, কীভাবে বয়স বাড়ার সাথে সাথে তরুণেরা তাদের জটিলতর সব সমস্যা ও দুঃশ্চিন্তা থেকে মানসিকভাবে রেহাই পাওয়ার জন্য গাঁজা সেবনের পরিমাণ বাড়িয়ে দেয়। অন্যদিকে, গাঁজায় আসক্ত এই তরুণেরা কেন শিক্ষাক্ষেত্রে ব্যর্থতা আর হতাশার সম্মুখীন হয়—সেই ব্যাপারেও নিশ্চিত হওয়া গেল।”

Tagged with:

About Author

সাম্প্রতিক ডেস্ক