যে ৬ ধরনের বিষাক্ত মানুষের সঙ্গে কোনো সম্পর্কে জড়াবেন না

শেয়ার করুন!

রিলেশনশিপের ক্ষেত্রে বিশ্বাস অনেক গুরুত্বপূর্ণ। একটা ভালো সম্পর্ক টিকিয়ে রাখার জন্য যে সব বিষয়ের দিকে নিয়মিত নজর রেখে চলতে হয় তার মাঝে একটি হল বিশ্বাস। কিন্তু কিছু মানুষ আছে যারা কোনো অবস্থাতেই তার সঙ্গীকে ধোঁকা না দিয়ে থাকতে পারে না। তাদের বিশ্বাসঘাতকতা প্রকাশ পাওয়া সময়ের ব্যাপার মাত্র।

তাই এ ৬ ধরনের মানুষের সাথে কোনো সিরিয়াস রিলেশনশিপে যাওয়া আপনার জন্য সময় নষ্ট ছাড়া আর কিছুই না।

৬. নার্সিসিস্ট

নার্সিসিস্টরা কখনোই একজনের ভালোবাসায় সন্তুষ্ট থাকে না। তারা আত্মমগ্ন থাকে বলে সবসময় অন্যের কাছ থেকে শ্রদ্ধা দাবি করে। এভাবেই নিজেদেরকে জানান দেয় তারা। একজন নার্সিসিস্ট সারাক্ষণ এক পারফেক্ট সঙ্গী খুঁজে বেড়ায়। সে আসলেই এমনটা মনে করে যে, তার বর্তমান রিলেশনশিপটা পারফেক্ট না হওয়ায় তা চালিয়ে যাওয়া ঠিক হবে না। এক্ষেত্রে বাদবাকি সবাইকে দোষারোপ করলেও নিজের ভুল চোখে পড়ে না তার কাছে।

৫. অতিমাত্রায় রোমান্টিক

কাউকে আকৃষ্ট করা এবং নতুন রিলেশনশিপের সম্ভাবনা তৈরি করা একজন রোমান্টিকের কাছে অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ। এ ধরনের মানুষরা রোজকার নিয়ম পছন্দ করে না, সবসময় নতুন নতুন অভিব্যক্তি খোঁজে। বোরিং ভাব কাটানোর জন্য বিনোদনের বিভিন্ন নতুন উপায় খুঁজে বের করে সে। আর সঙ্গীকে খুশি রাখার জন্য সে সব পদ্ধতি অনুসরণ করতে থাকে। কোনো বাধা মানে না। তাদের কাছে স্বাধীনতার দাম সবচাইতে বেশি।

৪. আত্মবিশ্বাসহীন

আমাদের সবারই কোনো না কোনো ক্ষেত্রে আত্মবিশ্বাসের অভাব আছে। কিন্তু কারো মাঝে যদি নিজের জীবন চালানোর মতো দৃঢ়তা না থাকে—তাহলে তার প্রতিটা পদক্ষেপে অন্য কোনো ব্যক্তির সমর্থনের প্রয়োজন হয়। সঙ্গী নির্বাচনের ব্যাপারে এটা একটা ভয়াবহ ইঙ্গিত। অবস্থা একটু প্রতিকূল দেখলেই সে রিলেশনশিপ থেকে বের হয়ে যাবার চেষ্টা করবে। তারপর এমন কোনো পরিস্থিতি খুঁজবে যেখানে সবকিছু তার অনুকূলে আছে। এসবের মাধ্যমে নিজের অবস্থান সহজ করে তোলাই তার উদ্দেশ্য।

৩. অতি স্বার্থপর

স্বার্থপর মানুষরা নিজেদের নিয়ে চিন্তায় এতটাই মগ্ন থাকে যে, তাদের আপনজনকেও যে কষ্টের মধ্য দিয়ে যেতে হয় সেটা তারা মানতে চায় না। অবশ্য অনেক সময় তারা বুঝতে পারে—তারাই হয়ত তাদের নিকট লোকজনের কষ্টের কারণ। সমাজের সকল নৈতিক মানদণ্ড যে তাদের কাজকর্মেও সমান প্রযোজ্য, সেটা বিশ্বাস করে না তারা। অন্যের যেসব বৈশিষ্ট্য তাদের কাছে গ্রহণযোগ্য বলে মনে হয় না, সেগুলি নিজের মাঝে থাকলেও নিজেকে তারা অনায়াসে ক্ষমা করে দেয়।

২. ভুক্তভোগী

এই ক্যাটাগরির লোকজন নিজেদেরকে সব ধরনের কাজে শহীদ বলে মনে করে। যে কোনো ছোট্ট কারণ তাদেরকে দুঃখী বানানোর জন্য যথেষ্ট। এরা এমন লোকদেরকে খুঁজে বেড়ায় যারা তাদেরকে সান্ত্বনা দিতে পারবে। বাবা-মা’র কাছ থেকে তা না পেলে, নতুন কারো কাছে মানসিক আশ্রয় পাওয়ার আশায় অনুসন্ধান করতে থাকে ভুক্তভোগীরা।

১. সমালোচক

এ টাইপের মানুষরাও তেমন আত্মবিশ্বাসী না। যারা সবসময় অন্যদের সমালোচনা করতে পছন্দ করে এবং না চাইতেই উপদেশ দিয়ে বেড়ায়—তারা কেবল সবার সামনে নিজেদেরকে জাহির করার জন্যই এগুলি করে। স্বাস্থ্যবান কোনো সম্পর্ক গড়ে তুলতে পারে না তারা। এমনকি কারো ক্ষতি করতেও তেমন দ্বিধাবোধ হয় না তাদের।

সূত্র. ব্রাইট সাইড

কমেন্ট করুন

মন্তব্য

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here