তবে যারা কলা পছন্দ করেন, তাদের অত ঘাবড়াবার কিছু নাই।

সকালের নাস্তার জন্য কলা ভালো অপশন না

কলা বিষয়ে নতুন যে প্রায় খারাপ সংবাদ তা হচ্ছে—সকালের নাস্তায় কলা আপনার স্বাস্থ্যের উপকার না করে বরং অপকারই করছে।

পুষ্টিবিদ ড. ড্যারিল জিওফ্রে এর মতে, কলায় প্রচুর পরিমাণে পটাসিয়াম, ফাইবার ও ম্যাগনেসিয়াম থাকার কারণে কলার সুনাম আছে। কিন্তু সকালের নাস্তার জন্য কলা ভালো অপশন না।

ড. জিওফ্রে বলছেন, সকালে কলা আপনাকে খুব দ্রুত শক্তি দিবে ঠিক, কিন্তু আপনি খুব দ্রুতই ক্লান্ত হয়ে যাবেন এবং আপনি ক্ষুধা অনুভব করতে থাকবেন। এই ফলটিতে উচ্চ মাত্রার প্রাকৃতিক চিনি থাকার কারণে এ রকম ঘটে।

কলায় এসিডের মাত্রা যথাযথ থাকলেও এর শতকরা ২৫ ভাগই চিনি। সকালে কলা খেলে এই চিনি আপনাকে তাৎক্ষণিক শক্তি দিবে, তবে দুপুরের আগেই, মধ্য সকালের দিকে আপনি ক্লান্ত বোধ করবেন এবং আপনার দুর্বল লাগতে থাকবে।

ড. জিওফ্রে আরো বলছেন, এই সমস্যা ছাড়াও আরেকটি সমস্যা হল কলা হজমের জন্য ভালো নয়। তিনি বলেন, যখন যে কোনো রূপেই আপনি চিনি খাবেন, তা শরীরে যাওয়ার পরে ফার্মেন্টেশন বা গাঁজন প্রক্রিয়া ঘটাবে, মদ বা বিয়ারে যেমনটা ঘটে। এবং পরে তা আপনার শরীরের মধ্যে এসিডে পরিণত হবে। এতে আপনার হজম শক্তির সমস্যা ঘটবে। 

 

যদি খেতে চান, কীভাবে খাবেন?

তবে যারা কলা পছন্দ করেন, তাদের অত ঘাবড়াবার কিছু নাই। এই পুষ্টিবিদের মতে, কলার এই চিনি শরীরে শোষিত হওয়ার প্রক্রিয়া ধীরগতির করার জন্য কলার সাথে স্বাস্থ্যকর ফ্যাট বা চর্বি জাতীয় খাবার খেতে পারেন।

banana-901
কলার সাথে অন্যান্য খাবার, যেমন, পরিজ, দৈ বা টোস্ট খেলে আপনার শরীরে এই সুগার ধীরগতিতে শোষিত হয়। এবং এসিডের মাত্রা কমে যায়।

ড. জিওফ্রে বলেন, স্বাস্থ্যকর ফ্যাটের সাথে ব্যালেন্স না করে সকালের নাস্তায় কলা খেলে কলার অনেক গুণাগুণ বা উপকারিতাই আর কাজে লাগে না। বরং রক্তে সুগার এবং শরীরে এসিড বেড়ে যায়।  

ড. জিওফ্রে এমন কিছুর সাথে কলা খাওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন যাতে এসিড অকার্যকর হয়ে যায়, যেমন পিনাট বাটার, পরিজ, টোস্ট বা চিনি ছাড়া দৈ।

কলা খাওয়ার ক্ষেত্রে এই ব্যাপারটি অনুসরণ করলে বেলা ১১ টার দিকে আপনার আর ক্ষুধার কারণে অস্থির হতে হবে না।

কমেন্ট করুন

মন্তব্য