page contents
লাইফস্টাইল, সংস্কৃতি ও বিশ্ব

হকিং এর আশঙ্কা, ব্রেক্সিট বিপদে ফেলতে যাচ্ছে ব্রিটিশ বিজ্ঞানীদের

বিশ্বের সবচেয়ে বিখ্যাত বিজ্ঞানী স্টিফেন হকিং গত কয়েক মাস ধরেই বলে আসছেন ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন থেকে ব্রিটেন বের হয়ে গেলে তা ব্রিটিশ বিজ্ঞানীদের জন্য একটি দুর্যোগ হবে।

বিভিন্ন গবেষণার জন্য গ্রেট ব্রিটেন ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন থেকে প্রচুর অর্থ নিয়ে থাকে। হকিং বলছেন এর চেয়েও বড় ক্ষতি অর্থনৈতিকভাবে পরিমাপ করা যাবে না। শিক্ষার্থী, প্রফেসর এবং বিজ্ঞানীরা ইউরোপে আর স্বাধীনভাবে চলাচল করতে পারবে না। বিভিন্ন আইডিয়া, চিন্তা, কথাবার্তা মুক্তভাবে বিনিময় করার ব্যাপারটি বাধাগ্রস্ত হবে।

এই কথাগুলি গত কয়েক মাস আগে থেকেই হকিং বলে আসছিলেন।

এখন ২৪ জুন, ২০১৬ তে ব্রেক্সিট হয়ে যাওয়ার পর ব্রিটেনের সায়েন্স কম্যুনিটির সবাই আশঙ্কা করছেন হকিং এর কথাই সত্য হতে যাচ্ছে এবং খুব শীঘ্রই এর নেতিবাচক ফলাফল দেখা যাবে।

brexit-3

ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন থেকে বের হয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিলেও, দুই বছরের আগে ব্রিটেন আনুষ্ঠানিকভাবে বের হয়ে যেতে পারবে না। বিজ্ঞানীরা এই দুই বছরে আগামী পরিবর্তনের জন্য নিজেদের প্রস্তুত করবেন।

২০১৬ এর প্রথম দিকে একটি ভোটে ৮৩ শতাংশ বিজ্ঞানীরা ইউরোপিয়ান ইউনিয়নে থাকার পক্ষে ভোট দিয়েছিলেন।

তবে ব্রিটেনের বিজ্ঞান চর্চা সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হবে অর্থনৈতিক দিক দিয়ে। নেচার পত্রিকার মতে, গ্রেট ব্রিটেন তাদের রিসার্চ ফান্ডের ১৬ শতাংশ পেয়ে থাকে ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন থেকে আর ১৫ শতাংশ স্টাফ পেয়ে থাকে ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের মাধ্যমে।

ধারণা করা হচ্ছে ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে বেরিয়ে যাবার পর গ্রেট ব্রিটেন সব মিলিয়ে প্রতিবছর ১.৪ বিলিয়ন ডলার রিসার্চ ফান্ডিং হারাবে।

নেচার পত্রিকার মতে, ব্রিটেনের জন্য সবচেয়ে বিপদজনক ঘটনা হকিং আশঙ্কা করেছেন, তা হলো, ব্রিটেনের বিজ্ঞান বিচ্ছিন্ন হয়ে যাবে। সবাই যেই ব্যাপারটি আশঙ্কা করছে, ব্রিটেন আনুষ্ঠানিকভাবে বের হয়ে যাওয়ার পর ইমিগ্রেশন আইন আরো কঠিন করবে, এবং ব্রিটেনের বিজ্ঞান চর্চার ওপর এর নিশ্চিত প্রভাব পড়বে। বিভিন্ন উৎস থেকে গবেষণার টাকা আসা বন্ধ হয়ে যাবে এবং অনেক অনেক বিজ্ঞানীদের সাথে সম্মিলিতভাবে কাজ করার ক্ষেত্রটি ছোট হয়ে যাবে।

About Author

সাম্প্রতিক ডেস্ক