page contents
সমকালীন বিশ্ব, শিল্প-সংস্কৃতি ও লাইফস্টাইল

About Author

হুমায়ূন সাধু
হুমায়ূন সাধু

Author Posts

মুম্বাইয়ের ‘স্মৃতি’ (৫)

প্রত্যেক ট্রেনেই লেডিস কামরা আছে, সে সেই কামরায় উঠল না। দুইজনে দৌড়ায়া এক কামরায় উঠলাম। নোংরা মতন সিট।

মুম্বাইয়ের ‘স্মৃতি’ (৪)

প্রত্যেকটারে রুম আছে কিনা জিগানোর সাথে সাথে মনে কইরা ‘আমি বাংলাদেশী’ কইলাম। নট অ্যালাউড।

মুম্বাইয়ের ‘স্মৃতি’ (৩)

পরে বাথরুমেও দেখি লোটা শিকল দিয়া বান্ধা। লেখারে ফোনে জিগাইছিলাম, লোটা বান্ধা কেন? এত বড় একটা নোংরা লোটা কেমনে নিব? কে নিব? নিয়া কী করব? লেখা হাসে।

মুম্বাইয়ের ‘স্মৃতি’ (২)

ইন্ডিয়ান আর বাঙালির ক্যারেক্টার একই। চান্স পাইলে লাইন থেইকা বাইর হইয়া সামনে যায় গা। দুই নাম্বারি কইরা পার হইতে চায়।

মুম্বাইয়ের ‘স্মৃতি’ (১)

আমার কপালে যে কত কী লেখা আছিল—‘লেখা’র যে আরো হিরোগিরি বাকি আছিল কে জানতো!

আদর্শ লিপি’র শুটিং থেকে – ৪

এমনিতে মেয়েটার হাসি ব্যারাম তার উপর আমার আইতাছে হাসি, আমি আর হাত ধরতে পারি না। সে হেল্প করতে গিয়া আমারে হাত আগায়া দেয়, আমার আরো হাসি পায়।

আদর্শ লিপি’র শুটিং থেকে – ৩

হায়দার ভাই বলল, "আমার পোলাটা সুন্দর লাল টক্টকা, নাদুস নুদুস। যদি কোনো মেয়ে কিছু করে দেয়।"

ট্রিট

আমার মনোযোগ বিগ আড়ং-এর বিগ স্ক্রিনের দিকে। তাহসানের গান চলতেছে: “শুনেছি আমি তুমি ভালই আছো, ভুলে গেছ আমায়, আমায় ভুলতে শিখেছ”—সেই সাথে মিউজিক ভিডিও।

জনাব শফি

গুল আপা: একবার আরেক শুটিং-এ এরকম চা দেয় না দেইখা বয়রে গালাগালি করছিলাম। পরে চা দিল। সেই চা কাইয়া আমি তো বেঁহুস, বাপরে বাপ! এখন তো এই চা আমি কাব না মাপ চাই।

সিনেমার গরু গাছে চড়ে

প্রোডিউসার মজা পায়া গেছে। আইস দিয়া... বিফ দিয়া... হালকা কোক দিয়া... টুং টাং।